বানরের কারণে পুরো গ্রামের বিয়ে বন্ধ

অনলাইন ডেস্ক »

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মেয়ে দেখতে ভাল। পড়াশোনাও করেছে। বাড়ির কাজকর্ম অল্পবিস্তর জানে। মেয়ে যেমন রাজি বিয়ে করতে, তেমন আবার মত রয়েছে পরিবারেরও। বিয়ের প্রস্তুতিতে কোনও ত্রুটি নেই। তা সত্ত্বেও বিয়ে হচ্ছে না গ্রামের তরুণীদের। কারণ তাদের বিয়েতে বাধ সাধছে শুধুমাত্র একদল বানর। ভাবছেন তো চারপেয়ে প্রাণীদের জন্য আবার কারও বিয়ে ভাঙতে পারে? কিন্তু এটাই বাস্তব। কারণ জানলে অবাক হয়ে যাবেন আপনি।

বানরের অত্যাচারে খুব বিপদে আছে ভারতের বিহার রাজ্যের ভোজপুর জেলার রতনপুর গ্রামের বাসিন্দারা। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে বানরের অত্যাচারে গ্রামের মেয়েদের বিয়ে প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে! হবে কি করে? যখনই বরযাত্রী গ্রামে ঢোকে, কিছু দূর এগোতে না এগোতেই বানররা দল বেঁধে পুরো কাফেলার ওপর হামলা চালায়। শেষে অবস্থা এমন দাঁড়ায় যে প্রতিবারই পড়িমরি করে প্রাণ বাঁচিয়ে পালায় বরযাত্রীরা।

বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রেই এই ঘটনা ঘটেছে। এখন তাই ওই গ্রামে ভয়ে কেউ আর বিয়ে করতে যেতেও রাজি হচ্ছে না। বিপদে পড়েছেন রতনপুরের মেয়েদের মা-বাবারাও। টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে জানা গেছে দিনকয়েক আগের ঘটনা। পাত্র তাঁর আত্মীয়স্বজনদের নিয়ে রতনপুরে বিয়ে করতে আসছিলেন। ব্যান্ডের বাজনার তালে তখন সবাই নাচে মশগুল। গ্রামের রাস্তা ধরে কিছু দূর এগোতেই বানরের দলটি ঘিরে ধরে।

প্রথমে কেউ তোয়াক্কাই করেনি বিষয়টায়। লাঠি-ইট নিয়ে তাড়ানেোর চেষ্টা করে তাদের। কিন্তু বানররাও যে কম যায় না, সেটা হাড়ে হাড়ে টের পায় তারা কিছুক্ষণের মধ্যেই। আরো বানর এসে এবার পাল্টা আক্রমণ করে বসে বরযাত্রীদের। তাদের ওপর হামলা চালায়। অনেককেই কামড়ে, আঁচড়ে ফেলে দেয়। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে বাকি বরযাত্রীরাও দৌড়ে পগারপার।

এই ধরনের ঘটনা একের পর এক ঘটতে থাকায়, চিন্তায় পড়ে গেছেন রতনপুরের বাসিন্দারাও। আর ইতিমধ্যেই এই হামলাকারীদের কাহিনী বহুদূর রটে যাওয়ায়, পাত্ররাও ওই গ্রামে বিয়ে করতে রাজি হচ্ছে না। বিয়ে করতে গিয়ে শেষে বানরের খপ্পরে কে-ই বা পড়তে চায়!

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »