গাজীপুরে বকেয়া বেতনের দাবিতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ, সড়ক অবরোধ

গাজীপুর থেকে মোফাজ্জল হোসেন »

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

গাজীপুরে বকেয়া বেতন ভাতা ও ঈদুল আজহার বোনাস পরিশোধ এবং বন্ধ কারখানা খুলে দেওয়ার দাবিতে স্টাইল ক্র্যাফ্ট পোশাক কারখানার শ্রমিক, কর্মচারী ও কর্মকর্তারা বিক্ষোভ করেছে।

এ সময় তারা ঢাকা-গাজীপুর সড়ক প্রায় দুই ঘণ্টা অবরোধ করে রাখে। সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সকাল পৌনে ৯টার দিকে গাজীপুর মহানগরীর বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) সামনে লক্ষীপুরা এলাকার ওই কারখানার সামনে শ্রমিকেরা এ বিক্ষোভ করে।

কারখানার সুইং অপারেটর রাজিয়া, হোল বাটন অপারেটর সাদেকুল ও ফিনিশিং সেকশনের অপারেটর জুনায়েদসহ অন্যান্যরা জানান, পূর্বে একাধিকবার বিক্ষোভের মুখে বকেয়া পাওনা আংশিক পরিশোধ করে গত ঈদুল আজহার আগে কারখানা ছুটি দেয় কর্তৃপক্ষ। কারখানায় প্রায় সোয়া চার হাজার শ্রমিক ও সাড়ে ৭০০ কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছে। ঈদের ছুটির পর গত ১ সেপ্টেম্বর ওই কারখানা চালু হওয়ার কথা থাকলেও ওইদিন কারখানা চালু না করে ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ছুটি বৃদ্ধির ঘোষণা দেয় কর্তৃপক্ষ। কারখানা খোলার দিন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের গত বছরের ডিসেম্বর মাসের বেতন এবং শ্রমিকদের গত জুন মাসের বেতনসহ ঈদুল আজহার বোনাস পরিশোধের কথা ছিল। এ নিয়ে শ্রমিকরা বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ করে। বিষয়টি নিয়ে শ্রমপ্রতিমন্ত্রীর উপস্থিতিতে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, সচিব, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও বিজিএমইএ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক হয়। বৈঠকে কারখানা মালিকের সম্পত্তি বিক্রি করে শ্রমিক কর্মচারীদের পাওনাদি পরিশোধ করার সিদ্ধান্ত হলেও এ পর্যন্ত তা পরিশোধ করা হয়নি।

এদিকে সোমবার সকালে পূর্ব নির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী কারখানার শ্রমিক, কর্মচারী ও কর্মকর্তারা কাজে যোগ দিতে কারখানায় আসে। তারা কারখানার গেইটে তালা ঝুলতে দেখতে পেয়ে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। এসময় তারা কারখানা খুলে দেওয়াসহ বকেয়া বেতন ভাতা ও ঈদ বোনাস পরিশোধের দাবিতে কারখানার গেইটে বিক্ষোভ শুরু করে। একপর্যায়ে তারা কারখানার সামনে ঢাকা-জয়দেবপুর সড়কের উপর অবস্থান নিয়ে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকে। এতে সড়কের উভয় দিকে অ্যাম্বুলেন্সসহ শতাধিক যানবাহন আটকা পড়ে।

গাজীপুর শিল্প পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ (এডিশনাল এসপি) জালাল উদ্দিন জানান, শ্রমিক-কর্মচারীদের অসন্তোষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অবরোধকারীদের সড়কের উপর থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলেও তারা অবরোধ তুলে নেয়নি। পরে পুলিশের মধ্যস্থতায় শ্রমিক নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থলে এসে আন্দোলনরতদের সঙ্গে আলোচনা করেন। আলোচনা শেষে বিষয়টি সমাধানের জন্য আন্দোলনরতদের আগামী ৩০ কর্মদিবস পর্যন্ত ধৈর্য্য ধারণের জন্য অনুরোধ করলে আন্দোলনরতরা তা মেনে নেন। পরে বেলা ১১টার দিকে আন্দোলন স্থগিত করে সড়কের অবরোধ তুলে নিলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয় ও সড়কে পুনঃরায় যানবাহন চলাচল শুরু করে।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »