চাল আত্মসাৎ বিষয়ক প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

গজারিয়া (মুন্সীগঞ্জ) থেকে সৈয়দ মো. শাকিল »

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় ১৮ শত কেজি চাল আত্মসাৎ বিষয়ক গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন ভবেরচর ইউনিয়ন পরিষদ সচিব মোকারম হোসেন।

শনিবার সকালে ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে মোকারম হোসেন বলেন, সরকারি ভাবে ভিজিএফ তালিকাভুক্তদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়। ভবেরচর ইউনিয়নে ভিজিএফের চাহিদা প্রায় আড়াই থেকে তিন হাজার, সেখানে আমরা পেয়েছি মাত্র এক হাজার। চাল প্রত্যাশি আগত কতিপয়ের মাঝে ভবেরচর ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জি. সাহিদ মো. লিটনের নির্দেশনায় পরিষদের পক্ষ থেকে ভর্তুকি কার্যক্রমে কিছু ব্যক্তিকে আট কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়।

ভবেরচর ৫ নং ওর্য়াড ইউপি সদস্য মামুন মেম্বার বলেন, চলমান করোনা পরিস্থিতির কারণে আমার এলাকায় তালিকাভুক্তদের ঘরে ঘরে চাল পৌঁছে দিয়েছি এবং সেই তালিকা আমি জনসম্মুখে প্রকাশ করেছি। এ বিষয় নিয়ে যে প্রতিবেদন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে তা উদ্দেশ্য প্রণোদিত, অসত্য, মিথ্যাচার ও বানোয়াট।

আরেক ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর মেম্বার বলেন, ভিজিএফ চাহিদার তুলনায় কার্ড প্রাপ্তি না হওয়াতে আমার এলাকায় আরও অনেকেই কার্ড পাওয়ার যোগ্য। চাল বিতরণকালে তারা পরিষদে উপস্থিত হয় এবং মানবিক কারণে তাদের পরিষদের পক্ষ থেকে ভর্তুকি স্বরূপ সহযোগিতা করা হয়। এই নিয়ে যেসব সাংবাদিক ভাইরা আমাদের সঙ্গে কথা না বলেই মিথ্যাচার করার জন্য সংবাদ প্রকাশ করেছেন তাদের উদ্দেশ্য আপনাদের বুজতে আর বাকি নেই। আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে সাংবাদিকদের এই অসাধু আচরণে এলাকায় আমার তথা ভবেরচর ইউপির সম্মানহানি হয়েছে। বিষয়টি পরিষদের পক্ষ থেকে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও গজারিয়া থানাকে ইতিমধ্যেই অবগত করেছি। তারা জানিয়েছে বিষয়টি তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

ভবেরচর ইউপি চেয়ারম্যান সাহিদ লিটন বলেন, আপনারা সবাই জানেন বিগত দিনে আমার সময়ে ভবেরচর ইউনিয়ন পরিষদ মুন্সীগঞ্জ জেলার মধ্যে তিন বার শ্রেষ্ঠ ইউনিয়ন নির্বাচিত হয়েছে। কিছু অসাধু চক্র কারসাজি করে উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে কিছু সাংবাদিকদের মাধ্যমে ভবেরচর ইউনিয়ন পরিষদের সুনাম নষ্ট করার বিচিত্র কায়দা অদম্য চিত্তে চালিয়ে যাচ্ছে। আমি স্পষ্ট ভাবে বলতে চাই তিল তিল করে গড়ে তোলা সুনাম কোন উড়ো চিঠিতে হারিয়ে যেতে পারে না।

তিনি বলেন, প্রকাশিত সংবাদের প্রেক্ষিতে আমি ইতিমধ্যেই ইউপি সচিবসহ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি করেছি। তাদের আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট দিতে বলেছি। সঠিক তদন্ত রিপোর্ট আপনাদের নিকট পেশ করা হবে। তদন্তে কারো দোষ প্রমাণিত হলে দোষিদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অসত্য ও অবান্তর সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে সম্মান হানি করার অপচেষ্টার বিরুদ্ধে ধিক্কার ও নিন্দা জানাই।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »