ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ৮ কিলোমিটার যানজট

রূপগঞ্জ প্রতিনিধি »

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে দীর্ঘ ৮ কিলোমিটার যানজট সৃষ্টি হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে থেকে বিকেল পর্যন্ত উপজেলার বরপা, রূপসী, কাঞ্চন, ভুলতায় সরেজমিনে গিয়ে এ যানজটের চিত্র দেখা যায়।

যানজটের কারণে সাধারণ মানুষকে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়। যানজটের অন্যতম কারণ হিসেবে ঈদকে সামনে রেখে হাইওয়ে ও জেলা পুলিশের চাঁদাবাজি, যত্রতত্র গাড়ি উঠানামা, নিয়ম না নেমে গাড়ি চলাচলসহ রাস্তার পাশে মালবাহী ট্রাক থামিয়ে রাখার কারণে যানজটের সৃষ্টি হয় বলে অভিযোগ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, আজ ১৫ জুলাই থেকে সারাদেশে গণপরিবহণ চলাচল শুরু করেছে। ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার গাড়ি চলাচল করে। গণপরিবহণগুলোর নিয়ম ভেঙে বেপরোয়া চলাচল, যত্রতত্র যাত্রী উঠানামা কারণে যানজট আটকে রয়েছে। আবার কোন কোন বাসকে সড়কের মাঝেই যাত্রী উঠাতে নামাতে দেখা গেছে। এতে করে বাড়ছে সড়ক দুর্ঘটনার আশঙ্কাও। আটকে যাচ্ছে পন্যবাহী ও যাত্রীবাহী যানবাহন। এতে করে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক দিয়ে চলাচলরত যানবাহনগুলো আটকে রয়েছে। অল্প সময়ের জন্য যানবাহন আটকে থাকলে মূহুর্তেই দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়ে যায়। যানজটের কারণে একটি ১ ঘণ্টার পথ যেতে সময় লাগছে ৪ ঘণ্টা। হাইওয়ে পুলিশ মহাসড়কে পন্যবাহী গাড়ি আটকে চাঁদাবাজি করছে বলেও অভিযোগ পাওয়া যায়।

গোলাকান্দাইল এলাকার বাসিন্দা জাহাঙ্গীর মাহমুদ বলেন, ঢাকা যাওয়ার উদ্দেশ্যে গাউছিয়া থেকে গাড়িতে উঠি। দুইঘণ্টা ধরে গাড়ি থেমে আছে এখনো এক কিলোমিটারও যেতে পারিনি।যানজট নিরসনে হাইওয়ে পুলিশকেও তেমন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে দেখা যায় না।

গাউছিয়া এলাকার বাসিন্দা সোহেল মিয়া বলেন, চিটাগাংরোড থেকে গাড়িতে উঠেছি গাউছিয়ার যাওয়ার জন্য কাচঁপুর থেকে যানজট শুরু হয়েছে। দুই ঘণ্টায় মাত্র বরাবোতে পৌছেছি। যানজটের কারণে এখনো আটকে আছি। যানজট কখন শেষ হবে আর কখন বাড়ি যাবো।

কাচঁপুর হাইওয়ে থানার (ওসি) মনিরুজ্জামান বলেন, হাইওয়ে পুলিশ যানজট নিরসনে কাজ করে যাচ্ছে। তবে গাড়ি চালকরা নিয়ম ভঙ্গ করে চালানোর কারণেই যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। হাইওয়ে পুলিশের চাঁদাবাজির বিষয়টি সঠিক নয়।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »