প্রকৌশলী মোজাম্মেলের পদাবনতি: ওয়াসার সিদ্ধান্ত হাইকোর্টে স্থগিত

অনলাইন ডেস্ক »

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

গণমাধ্যমকে তথ্য সরবরাহ করার অভিযোগে ঢাকা ওয়াসার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মোজাম্মেল হককে ঢাকা ওয়াসার পদাবনতির (ডিমোশন) সিদ্ধান্ত স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। আগামী এক মাসের জন্য এই স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়েছে।

রবিবার এক রিট আবেদনের শুনানি করে বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিমের বিশেষ হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার এস এস আরেফিন জুননুন।

পরে আদালত থেকে বেরিয়ে তিনি সাংবাদিকদের জানান, গত ৪ জুলাই ঢাকা ওয়াসার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মোজাম্মেল হককে পদাবনতির সিদ্ধান্ত জানানো হয় ওয়াসার পক্ষ থেকে। অথচ ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খান ছুটিতে দেশের বাইরে রয়েছেন। তিনি কোনো চিঠিতে স্বাক্ষর করতে পারেন না। এ কারণে রিটটি দায়ের করেছিলাম।

২০১৭ সালের জুলাই ও আগস্টে তিনটি জাতীয় দৈনিকে ঢাকার ড্রেনেজ ব্যবস্থা, খাল ও জলাবদ্ধতা বিষয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত প্রতিবেদনে ঢাকা ওয়াসার তৎকালীন ড্রেনেজ সার্কেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মোজাম্মেল হকের মতামত উল্লেখ করা হয়েছে। এ ঘটনায় ওয়াসার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে বলে অভিযোগ তুলে তদন্ত কমিটি গঠন করে কর্তৃপক্ষ। সংস্থার তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. রুহুল আমিনকে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়। তিনি গত বছরের ২১ ডিসেম্বর প্রকৌশলী মোজাম্মেল হককে অভিযুক্ত করে প্রতিবেদন জমা দেন।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, অভিযোগের বিষয় উদ্ঘাটনের জন্য সংশ্লিষ্ট পত্রিকার প্রতিবেদকদের ৫ বার চিঠি দেওয়া হলেও কোনো সাড়া আসেনি। পরে প্রতিবেদকদের সঙ্গে স্বশরীরে দেখা করেন তিনি (রুহুল আমিন)। সে সময় তারা (প্রতিবেদকরা) এ বিষয়ে লিখিত বক্তব্য জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তবে তারা জানান, প্রতিবেদনে প্রকাশিত মতামত প্রকৌশলী মোজাম্মেল হকের সঙ্গে কথা বলে তুলে ধরা হয়েছে। আর মোবাইল ফোনে তারা (প্রতিবেদকরা) এ মতামত নিয়েছেন তার (প্রকৌশলী মোজাম্মেল হক) কাছ থেকে।

তদন্ত প্রতিবেদনের সুপারিশে বলা হয়, ঢাকা পানি সরবরাহ ও পয়ঃনিষ্কাশন কর্তৃপক্ষ চাকরি প্রবিধানমালা-২০১০ এর ৩৭(৬) উপধারা মতে, কর্তৃপক্ষের বিষয়াদি সম্পর্কে সংবাদপত্র বা গণমাধ্যমের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ স্থাপন করে বিবৃতি প্রদান করা আইনত নিষিদ্ধ বিধায় প্রকৌশলী মোজাম্মেলকে দোষী সাব্যস্ত করা যুক্তিযুক্ত। এ কারণে তাকে পদাবনতি দেওয়া হয়। সেই পদাবনতির বিষয়টি চ্যালেঞ্চ করে রিট করা হলে শুনানি শেষে আদালত এ আদেশ দেন।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »