বিশ্বে আলঝেইমারের প্রথম ওষুধের অনুমোদন

অনলাইন ডেস্ক »

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মানব মস্তিষ্কের স্মৃতিভ্রমের রোগ আলঝেইমারের চিকিৎসায় প্রথম ওষুধের অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ)।

অনুমোদন পাওয়া ওষুধটির নাম অ্যাডুকেনুম্যাব। প্রায় ২০ বছর ট্রায়ালের পর বায়োজেন কোম্পানির এই ওষুধটি যুক্তরাষ্ট্রে অনুমোদন পেল। খবর বিবিসির।

এফডিএ দফতর থেকে জানানো হয়, অ্যাডুকেনুম্যাব মানব মস্তিষ্কে আলঝেইমার সৃষ্টিকারী এক ধরনের প্রোটিন হ্রাস করতে পারে বলে প্রমাণিত হয়েছে।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, মানবদেহে অ্যাডুকেনুম্যাবের তিন দফা পরীক্ষা চালানো হয়। ২০১৯ সালে সবশেষ ধাপের আন্তর্জাতিক ট্রায়ালে প্রায় তিন হাজার মৃদু উপসর্গের রোগী এতে অংশ নেন। ওষুধটি আলঝেইমারের উপসর্গের চেয়ে সাধারণ রূপ স্মৃতিভ্রমের অন্তর্নিহিত কারণকে টার্গেট করে মানব শরীরে কাজ করে থাকে।

যুক্তরাজ্যে আলঝেইমারের মৃদু উপসর্গের রোগী আছেন প্রায় ১০ হাজার। ওষুধটি ব্রিটেনে অনুমোদন পেলে আলঝেইমারের চিকিৎসায় ভূমিকা রাখতে পারে।

তবে অ্যাডুকেনুম্যাব নামের ওষুধটির কার্যকারিতা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। এটি আলঝেইমার রোগে কাজ না করায় ২০১৯ সালের মার্চে ট্রায়াল স্থগিত করে এফডিএ। এছাড়া ওষুধটি মস্তিষ্কের রোগ প্রতিরোধের চেয়ে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করায় অনেক চিকিৎসা বিজ্ঞানী এটির তীব্র সমালোচনা করেন।

তবে বায়োজেনের দাবি- ওষুধের মান উন্নয়নের পাশাপাশি দীর্ঘ পরীক্ষা শেষেই অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ)। দীর্ঘ বিতর্কের পর অবশেষে আলঝেইমার রোগের চিকিৎসার জন্য ওষুধটির অনুমোদন দেয়া হলো। আন্তর্জাতিক মেডিকেল দাতব্য সংস্থাগুলো যুক্তরাষ্ট্রের নতুন এ ওষুধটির অনুমোদনের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে।

আলঝেইমার রোগ কী?
আলঝেইমার রোগ একটি ডিজেনারেটিভ রোগ। যা মস্তিষ্কের স্নায়ুতন্ত্রকে প্রভাবিত করে। বয়স্কদের মধ্যে এ রোগ দেখা যায়। এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির স্মৃতিশক্তি খুব দুর্বল হয়ে যায় এবং তাদের মস্তিষ্ক সঠিক ভাবে কাজ করতে সক্ষম হয় না।

যার কারণে তাদের প্রতিদিনের রুটিন ধীরে ধীরে অবনতি হতে শুরু করে। আলঝেইমার এক ধরনের ডিমেনশিয়া হিসাবেও পরিচিত। এ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তি জিনিস এবং মানুষের মুখ সনাক্ত করতে প্রচুর অসুবিধায় পড়েন। এটি একটি বিশ্ব স্বাস্থ্য সমস্যা।

লক্ষণ ও উপসর্গ
প্রাথমিক পর্যায়ে আলঝেইমারে আক্রান্ত ব্যক্তির সময় জ্ঞান থাকে না, জিনিস হারিয়ে ফেলেন, খারাপ অনুমানের কারণে খারাপ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকেন, সময়মতো দৈনিক কাজ শেষ করতে অক্ষমতা, সামাজিক কাজ থেকে বিরত থাকা, কথা বলতে সমস্যা, দৈনন্দিন জীবনে প্রভাবিত স্মৃতি সমস্যা।

দ্বিতীয় পর্যায়ে আলঝেইমারে আক্রান্ত ব্যক্তির অকারণে রাগ বাড়ে, বন্ধু-বান্ধব এবং পরিবারের সদস্যদের চিনতে সমস্যা, পড়ালেখায় অসুবিধা, নতুন কাজ শিখতে এবং বুঝতে অক্ষম, কান্নাকাটি, উদ্বেগ, ঘোরাঘুরি, অস্থিরতা ইত্যাদির মতো আচরণ দেখা যায়।

আক্রান্ত ব্যক্তির গুরুতর লক্ষণগুলো হলো- ওজন হ্রাস, খিঁচুনি হওয়া, ত্বকে সংক্রমণ, হতাশা, খাবার গিলতে সমস্যা, প্রস্রাব কম হওয়া ইত্যাদি।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »