নাকে পেরেক ঢুকিয়ে, কান দিয়ে বিমান টেনে বিশ্বরেকর্ড

বিশ্বকণ্ঠ ডেস্ক »

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

তার জন্মই যেন হয়েছে, অদ্ভুত সব কর্মকাণ্ড করার জন্য। তিনি সবসময়ই উল্টো পথের পথিক। মানুষ যেসব কর্মকাণ্ড করার কথা কল্পনাও করতে পারেন না; তিনি তা করে দেখান।

তার বিভিন্ন স্টান্টগুলো দর্শকরা দেখেন আর শিহরিত হয়ে থাকেন। সবাই ভাবেন, কীভাবে তিনি এটি সম্ভব করলেন?

বলছি মার্কিন পর্বোতারোহী ও জাম্বার জনি স্ট্রেঞ্জের কথা। তার নামের সঙ্গে আছে স্ট্রেঞ্জ শব্দটি। কারণ তার অদ্ভুত সব কর্মকাণ্ড দেখলে সবার মুখ থেকেই অজান্তে বেরিয়ে আসে ‘স্ট্রেঞ্জ’ শব্দটি।

জনি বলেন, ‘আমি অসম্ভবকে সম্ভব করতে বিশ্বাসী; আমি সব সময়ই অস্বাভাবিক এবং উদ্ভট বিষয়ে আগ্রহী।’

তার কান দু’টিকে সবাই স্টিলের বলে থাকেন। এ জন্য তার নাম দেওয়া হয়েছে ‘দ্য ম্যান উইথ ইয়ার্স অব স্টিল’। তার ঝুলিতে অনেক অর্জন আছে। জনি একাধারে একজন জাম্পার এবং পর্বতারোহী। এছাড়াও তিনি একজন অভিনেতা, কমেডিয়ান, ম্যাজিশিয়ান ও স্ট্রিট পারফর্মার।

সেই সঙ্গে একজন তুখোড় স্টান্টবাজ তিনি। এ যাবৎকালে তিনি অবিশ্বাস্য সব কর্মকাণ্ড করেছেন।

১৯৮৮ সালের ০৬ ডিসেম্বর তিনি ইংল্যান্ডে জন্মগ্রহণ করেন। তার বিভিন্ন কর্মকাণ্ড সম্পর্কে জানলে আপনি রীতিমতো চমকে উঠবেন। লম্বা একটি ধারালো তলোয়ার তিনি তার মুখের মধ্যে নিয়ে গলা এমনকি পেট পর্যন্ত দিয়েও ঢুকিয়ে নিতে পারেন। সেই সঙ্গে নাক দিয়ে পেরেক ঢুকিয়ে নেয়া, ভাঙা কাঁচের মধ্য দিয়ে হাঁটা, আগুন খাওয়া এবং শ্বাস নেয়া, ভাঙা কাঁচ এবং নখ খাওয়া ইত্যাদি কাজ তিনি হাসতে হাসতে করে থাকেন।

তার এসব কর্মকাণ্ড দেখতে গিয়ে অনেকে অজ্ঞান পর্যন্ত হয়ে গেছেন! তবুও জনি স্ট্রেঞ্জ ঠিকই তার কাজগুলো সম্পন্ন করেছেন। তার এসব কর্মকাণ্ড এতোটাই অদ্ভুত যে, অন্যরা করার কল্পনাও করেন না। আর তাইতো একের পর এক বিশ্ব রেকর্ড গড়েছেন তিনি। তার সব কর্মকাণ্ডই গিনেস বুকে জায়গা করে নিয়েছে।

তার সবচেয়ে বড় অর্জন হলো কান দিয়ে বিমান টেনে নেওয়া। এসেক্সের নর্থ ওয়েল্ড এয়ারফিল্ডে ২০ দশমিক ৪ মিটারের ৬৭৭ দশমিক ৮ কেজি ওজনের একটি সেসনা ১৭২-পি বিমান টেনে বিশ্বরেকর্ড গড়েন তিনি। ভাবতেই পারেন, কান দিয়ে আবার বিমান টানে কীভাবে?ৎ

আসলে জনি তার কানের লতিতে বড় ছিদ্র করেছেন। দীর্ঘদিন ধরে কানের লতি দিয়ে বিভিন্ন ভারি জিনিস ওঠানোর কারণে এখন ওই ছিদ্র বড় হয়েছে। সেখান দিয়ে অনয়াসায়েই বিভিন্ন রিং পড়ে ভারী বস্তু উত্তোলন করেন জনি। এ জন্যই তাকে ‘স্টিলের কানওয়ালা মানুষ’ বলা হয়।

২০১৬ সালে কান দিয়ে বিমান টানার জন্য জনি গিনেস বুক অব রেকর্ডসে নাম লেখান। শুধু একটিই নয়, তার ঝুলিতে ৮টি গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড আছে।

জনি জানান, মাত্র ১০ বছর বয়স থেকেই তিনি বিভিন্ন স্টান্ট করা শুরু করেন। তবে কান দিয়ে বিমান টানার বিষয়টি বেশ কষ্টকর ছিল। এ জন্য বিশেষ প্রস্তুতি নিতে হয়েছিলো। তিনি কানের লতি টেনে টেনে এতোটাই শক্ত আর প্রসারিত করেছেন যে, তা ছিঁড়ে যাওয়ার ভয় নেই।

জনির অন্যান্য গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস-
কান দিয়ে তিনি সর্বপ্রথম সবচেয়ে বেশি ওজন উত্তোলন করেন। কানের লতিতে রিং ঝুলিয়ে ১৪ দশমিক ৯ কেজি ওজন উঠিয়ে বিশ্বরেকর্ড গড়েন জনি।

এরপর মুখে আপেল ধরে ৩০ সেকেন্ডে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক আপেল কড়াত দিয়ে কেটে বিশ্বরেকর্ড গড়েন। এক মিনিটের মধ্যে পেট্রোল চেইনসো দিয়ে নিজের মুখ থেকে ১২টি আপেল বের করে কেটেছিলেন তিনি।

সহকারীরা তার পেটে ১৬টি কংক্রিটের ব্লক রেখে স্লেজ হাতুড়ি দিয়ে সেগুলো ভেঙে ফেলেন। এক মিনিটের মধ্যে ১৬টি কংক্রিট ব্লক ভাঙেন তারা, তাও আবার ৩০ দশমিক ৪ সেকেন্ডের মধ্যে। এবারও বিশ্বরেকর্ড গড়ে জনি।

শরীরে বিভিন্ন পোকা নিয়ে টানা এক মিনিট ছিলেন তিনি। এই কর্মকাণ্ডের পরও তিনি বিশ্বরেকর্ড গড়েছিলেন।

সামুরাই তলোয়ার ব্যবহার করে ৩০ সেকেন্ডের মধ্যে সহকারীর পেটের উপরে থাকা ১০টি তরমুজ কাটতে সক্ষম হন তিনি। তখন তার সহকর্মীরা পেরেক বিছানো বিছানায় শুয়ে ছিলেন। এভাবেও গিনেস বুকে নাম লেখান জনি।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »