বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেয়ার দাবিতে জবি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সোহেল »

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে ধীরে ধীরে লকডাউন শিথিল হলেও এখনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ রয়েছে। অবিলম্বে বিশ্ববিদ্যালয় খুলে ক্লাস-পরীক্ষা সচল করার দাবিতে মানববন্ধন করেছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

শনিবার সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্ত চত্বরে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে এ মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, করোনা যতদিন থাকবে, শিক্ষা কার্যক্রমও চলবে। আপনারা করোনার দোহাই দিয়ে আর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখবেন না। আকাশপথ, নৌপথ, রেলপথসহ যেখানে সবকিছু স্বাভাবিকভাবে চলছে, তখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে তামাশা শুরু করা হয়েছে। পরিবহন সেক্টর, গার্মেন্টস ও শপিংমলগুলো খোলা।

সেখানে করোনা নেই, নাকি শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনা হচ্ছে? শ্রমিকদের চেয়ে শিক্ষার্থীরা অনেক বেশি সচেতন। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল নেই। তাই অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো অপেক্ষা না করে অবিলম্বে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়সহ সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিন।

মানববন্ধনে উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের ১৩ ব্যাচের শিক্ষার্থী রাকিব বলেন, একটি জাতির ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে থাকে শ্রেণিকক্ষে। কিন্তু আপনাদের জাতির ভাগ্য নিয়ে কোনো ভাবনা নেই। করোনার এই সময়ে শিক্ষার্থীরা ভিডিও গেমসসহ মাদকাসক্তি জড়িয়ে পড়ছে। মেয়ে শিক্ষার্থীরা বাল্যবিবাহের শিকার হচ্ছে। সরকারের এই বিষয়ে কোনো খেয়ালই নেই।

তারা বলেন, সরকারের নীতিনির্ধারকদের সন্তানরা বিদেশে পড়ালেখা করে, তাই তাদের হুঁশ নেই। তাদের সন্তান এ দেশে পড়লে তারা আমাদের কথা বুঝত যে, শিক্ষার্থীদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। ভিসি স্যারকে অনুরোধ করছি, বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দিয়ে ক্লাস পরীক্ষা সচল করে দিন।

মানববন্ধনে গণিত বিভাগের ১১ ব্যাচের শিক্ষার্থী শাহীন বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করোনার উৎস না। হাটবাজার, গার্মেন্টস, লঞ্চ সবই যদি চলতে পারে, তাহলে শুধু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন বন্ধ?

‘সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ শিক্ষার্থী নিম্নমধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত পরিবার থেকে উঠে আসা। আমাদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। আমাদের পরিবার আমাদের দিকে তাকিয়ে আছে। দেড় থেকে ২ বছর একই ক্লাসে পড়ছি। শিক্ষামন্ত্রীর কাছে আবেদন, তিনি আমাদের অবস্থা বুঝবেন এবং বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেবেন।’

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »