মাত্র ১০ টাকাতেই মিলছে আইসিইউ সেবা!

বিশেষ প্রতিবেদন »

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দেশে ক্রমেই তীব্র হচ্ছে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের প্রকোপ। হাসপাতালগুলোতে দেখা দিচ্ছে আক্রান্ত রোগীদের চাপ, যাদের অধিকাংশই হন্যে হয়ে ছুটছেন নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) জন্য।

একটি শয্যা আর সুস্থ হওয়ার তীব্র আকাঙ্ক্ষা নিয়ে কেউ কেউ বাধ্য হয়ে যাচ্ছেন বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে। এ সুযোগে আইসিইউ’র ভাড়া সাধারণ সময়ের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ বেশি রাখা হচ্ছে। ফলে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়ছে রোগীর পরিবার, কেউ কেউ হচ্ছেন নিঃস্ব।

অপরদিকে, সরকারি হাসপাতালগুলোতে এ চিত্র পুরোটাই ভিন্ন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় নতুন চালু হওয়া ডিএনসিসি মার্কেটে ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালগুলোর আইসিইউতে অতিরিক্ত কোন খরচ হয় না। শুধু ভর্তি টিকেট বাবদ ১০ টাকাতেই মিলছে আইসিইউসহ বাকি সব চিকিৎসা। বেসরকারি হাসপাতালে লাখ লাখ টাকার ভিড়ে নামমাত্র টাকায় আইসিইউ সেবা পেয়ে দুঃখের দিনে স্বস্তি মিলছে রোগীর স্বজনদেরও।

গণমাধ্যমকর্মী তৈমুর ফারুক তুষার। করোনা আক্রান্ত শ্বশুরকে নিয়ে শুরুতে ভর্তি হয়েছিলেন রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে। রোগীর অবস্থা কিছুটা অবনতি ঘটলে আইসিইউতে নেওয়ার কথা বলা হয়। কিন্তু খরচ সম্পর্কে জানতে চাইলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, দুই সপ্তাহে অন্তত ১০-১৫ লাখ টাকা বিল আসতে পারে, যা ব্যবস্থা করা তাদের জন্য অনেকটাই দুরূহ। অবশেষে রোগীকে নিয়ে চলে আসেন মহাখালী ডিএনসিসি মার্কেটে নির্মিত করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে। মাত্র ১০ টাকাতে রোগীকে ভর্তি করে আইসিইউ সেবা পাচ্ছেন তিনি একেবারেই বিনামূল্যে।

তিনি বলেন, ‘শ্বশুরের চিকিৎসার জন্য মাত্র ১০ টাকায় ডিএনসিসির কোভিড হাসপাতালে আইসিইউ বেড পেয়েছি। প্রাইভেট হাসপাতালে জানিয়েছিল, প্রতিদিন অন্তত ৫০ হাজার টাকা খরচ হবে এবং দুই সপ্তাহের জন্য রাখা লাগতে পারে। এর ওপর নানা খরচ তো আছেই। মানে হলো, অন্তত ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকার ব্যাপার। তিন দিন প্রাইভেট মেডিকেলে থেকে প্রতিদিন গড়ে ১৫ হাজার টাকার ওষুধের বিল দিতে হয়েছে। কিন্তু ডিএনসিসির হাসপাতালে বেশির ভাগ ওষুধই তারা দিচ্ছে। আমাদের কিনে দিতে হচ্ছে ৪০০-৫০০ টাকার ওষুধ।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের মতো মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়ে পরিস্থিতি জটিল হলে সরকারি চিকিৎসা সেবা না পেলে বিনা চিকিৎসায় মরতে হবে। এর চিকিৎসা ব্যয় যোগাড় করা আমাদের মতো মানুষদের পক্ষে দুঃসাধ্য। ফলে করোনা থেকে দূরে থাকার চেষ্টাই চলমান মহামারি মোকাবিলায় আমাদের মূল কৌশল হওয়া উচিত।’

রাজধানীর বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালেই করোনা চিকিৎসায় গলাকাটা বিল আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়া হাসপাতালগুলোর বিরুদ্ধে নিজেদের প্রয়োজনে করোনা আক্রান্ত নন এমন রোগীকেও আক্রান্ত বানানোরও অভিযোগ রয়েছে।

অভিযোগ রয়েছে, পরীক্ষার জন্য নির্ধারিত ফির চেয়ে বেশি নেওয়ার। এসব বন্ধে সংশ্লিষ্ট হাসপাতালগুলোর বিরুদ্ধে দ্রুত শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে জোর দাবি জানান ভুক্তভোগীরা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অক্সিজেনের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় অযৌক্তিক ভাবে উচ্চমাত্রায় চার্জ নিচ্ছে কিছু বেসরকারি হাসপাতাল। এমনটি হওয়ার একটিই কারণ, অক্সিজেনের জন্য কত ফি নেওয়া যাবে সেই বিষয়ে সরকারি কোন নীতিমালা না থাকা।

বেসরকারি হাসপাতালের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করছেন এমন একাধিক জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ বলছেন, রোগী নিয়ে বেসরকারি হাসপাতালগুলোর বিরুদ্ধে বাণিজ্যের অভিযোগ বেশ পুরানো। করোনা ভাইরাস মহামারি দেখা দেওয়ায় আশঙ্কা করা হচ্ছিল, তাদের পরীক্ষা বা চিকিৎসার সুযোগ দিলে এমন বাণিজ্যের উৎসব শুরু হবে। পরবর্তী সময়ে যা নিয়ন্ত্রণ কঠিন হয়ে পড়তে পারে। সরকারের পক্ষ থেকে সে কারণেই শুরুর দিকে বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে করোনা ভাইরাস পরীক্ষা এবং এ ভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ চিকিৎসার অনুমতি দিতে দেরি করা হচ্ছিল।

সরকারি হাসপাতালের আইসিইউ সেবা ও খরচ প্রসঙ্গে মহাখালীর ডিএনসিসি মার্কেটে নির্মিত ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসির উদ্দিন বলেন, ‘সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা নিয়ে আমাদের ভুল ধারণা রয়েছে। কিন্তু সবচেয়ে ভালো ও বিশেষজ্ঞ সেবা একমাত্র সরকারি হাসপাতালেই পাওয়া যায়। সেই সঙ্গে খরচও কম।’

চালু হওয়ার আগে ডিএনসিসি ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালহাসপাতালের ভেতরের দৃশ্য সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আমরা খুবই উন্নতমানের এবং সর্বাধুনিক আইসিইউ তৈরি করেছি। আইসিইউটা আমাদের ফ্রি থাকবেই। আমাদের সরকারি সব হাসপাতালেই আইসিইউ ফ্রি।’

১০ টাকায় আইসিইউ সেবা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি মানুষকে সেবা দেওয়ার। এখানে ১০ টাকায় চিকিৎসা বলতে, যেকোনো রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হলে ১০ টাকার একটি টিকিট কাটতে হয়। এটাই রোগীর খরচ। আইসিইউসহ যত ধরনের সেবা আমাদের রয়েছে, রোগীরা সব বিনামূল্যে পাবেন। আমরা চেষ্টা করছি যেন এই ১০ টাকাতেই রোগীরা সব ধরনের সেবা হাসপাতাল থেকে নিতে পারেন। এর বাইরে রোগীকে যেন পয়সা খরচ করতে না হয়।’

নাসির উদ্দিন বলেন, ‘একটা পর্যায়ে হয়তো পারব না। রোগীর সংখ্যা যদি অনেক বেড়ে যায়, তখন এটা খুবই কঠিন হবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত রোগীরা ফ্রিতে আইসিইউ সেবা নিচ্ছেন। খরচ করার কোন প্রয়োজনই হচ্ছে না।’

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যমতে, বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) পর্যন্ত রাজধানীর ১৩টি সরকারি হাসপাতালে মোট আইসিইউ শয্যা রয়েছে ২৪২টি, এর মধ্যে শয্যা খালি রয়েছে ২২টি। তবে হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলাসহ আইসিইউ শয্যা রয়েছে মোট ৪৬৮টি। এছাড়াও অক্সিজেন কন্সেন্ট্রেটরসহ এইচডিইউ সমতুল্য শয্যা সংখ্যা ১৬৪টি।

এদিকে, রাজধানীর ১৬টি বেসরকারি হাসপাতালে মোট আইসিইউ শয্যা রয়েছে ৫১৪টি। এর মধ্যে শয্যা খালি রয়েছে ১৩৯টি। তবে হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলাসহ আইসিইউ শয্যা রয়েছে মোট ৩৫৫টি। এছাড়াও অক্সিজেন কন্সেন্ট্রেটরসহ এইচডিইউ সমতুল্য শয্যা রয়েছে ১০৬টি। সবমিলিয়ে রাজধানীতে সরকারি বেসরকারি মিলিয়ে মোট ২৯টি হাসপাতালে মোট আইসিইউ শয্যা ৭৫৬টি, এর মধ্যে শয্যা খালি রয়েছে ১৬১টি। তবে হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলাসহ আইসিইউ শয্যা রয়েছে মোট ৮২৩টি। এছাড়াও অক্সিজেন কন্সেন্ট্রেটরসহ এইচডিইউ সমতুল্য শয্যা রয়েছে ২৭০টি।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »