হামলার শিকার আ’লীগ প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলন

বরগুনা থেকে মো. মাহাবুব আলম »

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বরগুনায় নির্বাচনী প্রচারণাকালে আ’লীগের প্রার্থী এ্যাডভোকেট মুজিবুল হক কিসলু ও তার কর্মী সমর্থকদের উপর হামলার বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার বেলা ১২টার দিকে বরগুনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মজিবুল হক কিসলু।

তিনি বলেন, আমি বরগুনা সদর উপজেলার ৫ নং আয়লাপাতাকাটা ইউনিয়নের আ’লীগ মনােনীত নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর ইউনিয়নের গাবতলী গ্রামে গণসংযোগ করতে করতে আদম বাজার পৌঁছালে বিদ্রোহী প্রার্থী মােশাররফ হোসেন ও তার বাহিনী অর্তকিত হামলা চালায়। এতে বীর মুক্তিযােদ্ধা কামাল আহমেদ, মজনু শরীফ রেজাউল, রনি, সাগর সুজনসহ ৮/৯ জন আহত হয়। দোকান থেকে কম্পিউটার, নগদ ৩০ হাজার টাকা ও বিভিন্ন প্রকার মালামাল নিয়ে যায়। কনু ও মনিরের দোকান রামরা বাজারে। মােশাররফ ও তার সমর্থকরা আমাকে খুন করতে চায়।

তিনি আরও বলেন, মােশাররফের বড় ভাই জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দেলোয়ার হােসেনের মদদে এই হামলা চালানো হয়। মোশাররফের তাণ্ডবে বরগুনা থেকে আগত এসআই মারুফ হোসেন মারাত্মক আহত। মোশাররফ আবুল বাশার, জয়নাল, মনির মৃধা আমাকে হত্যার হুমকি দেয়। পরে বরগুনা থেকে পুলিশ এসে আমাকে উদ্ধার করে। মোশাররফ যেভাবে নৌকার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে তাতে যেকোনো সময় আরও বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

মজিবুল হক বলেন, মোশাররফ ও তার বড় ভাই দেলোয়ার হােসেন দীর্ঘ ২০ বছর নৌকার বিরোধীতা করে আসছে। এই পরিবার সব সময় প্রধানমন্ত্রীকে কটুক্তি করে আসছে। আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নবাসীকে জিম্মি করে রেখেছে।

দেলোয়ার হোসেন প্রধানমন্ত্রীর সমর্থন নিয়ে বরগুনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হয়েছে। তারপরও দেলোয়ার হােসেন নৌকার বিরোধীতা করে আসছে। প্রধানমন্ত্রীকে সব সময় অসম্মান করে। আমাদের পুলিশ বাহিনী না থাকলে নৌকার সমর্থকরা আরও আহত হত। আমি এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

সদর থানার অফিসার ইনচার্জ বলেন, সন্ত্রাসী যতই শক্তিশালী হোক না কেন তাকে ছাড় দেওয়া হবে না।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »