স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগী রেখে অন্যত্র সেবা দেন তিনি

গজারিয়া (মুন্সীগঞ্জ) থেকে সৈয়দ মো. শাকিল »

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. নূরে আলম সিদ্দিকী কর্তব্যরত অবস্থায় অন্যত্র চিকিৎসা সেবা দেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার বিকেলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা সড়ক দুর্ঘটনায় মুমূর্ষু রোগীসহ অন্যান্য রোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে দেখা যায়, জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক ও আবাসিক মেডিকেল অফিসার নূরে আলম সিদ্দীক লকডাউনের মধ্যেও রোগীদের বসিয়ে রেখেই অপারেশন করার জন্য অন্যত্র প্রাইভেট ক্লিনিকে চলে যান।

অভিযোগের অনুসন্ধান করতে গিয়ে ভবেরচর জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে দেখা যায়, তিনি অপারেশনের কাজে ব্যস্ত রয়েছেন। পরে অপারেশন শেষে তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ফিরে আসেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একাধিক চিকিৎসক বলেন, আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) নূরে আলম সিদ্দিকী প্রায় সময়ই ডিউটিরত অবস্থায় অন্য হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা কাজে ব্যস্ত থাকেন। এ বিষয়ে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মুবাশশিরা বিনতে আলম তাকে একাধিক বার বুঝিয়েছেন এবং নিষেধ করেছেন। তারপরও তিনি বিরত থাকেননি।

এ বিষয়ে ভবেরচর জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের পরিচালক মো. সালাউদ্দিন বলেন, লকডাউন ও করোনাকালীন সময়ের জন্য আমার এখানে চিকিৎসক ও এনেসথেসিয়া না থাকায় ডা. নূরে আলম সিদ্দিকী স্যারকে ফোন দিয়েছি। তিনি এনেসথেসিয়া ও সার্জিক্যাল অপারেশনের কাজে অভিজ্ঞ হওয়ায় তাকে দিয়ে একটি ইমারজেন্সি রোগীর অপারেশন করিয়েছি।

জানতে চাইলে (আরএমও) ডা. নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেটির পাশেই একটি হাসপাতালের মুমূর্ষু একজন রোগীর সার্জিক্যাল অপারেশন করতে যেতে হয়েছিলো। আমি সেখানে যাওয়ার আগে অপর একজন চিকিৎসককে জরুরী বিভাগটিতে প্রক্সি দিতে বলে গেছি। তিনি জরুরী বিভাগের রোগীদের চিকিৎসা দিয়েছেন।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »