শেষপর্যন্ত জয় বঞ্চিত কলকাতা

অনলাইন ডেস্ক »

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আইপিএলে ১৫তম ম্যাচে বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শেষ দিকে প্যাট কামিন্সের ঝড়ো ব্যাটে প্রায় জিতেই নিয়েছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স। কিন্তু অন্যপ্রান্তে উইকেট বিলিয়ে আসায় চেন্নাই সুপার কিংসের বিপক্ষে ১৮ রানে হেরে গেলন ইয়ন মরগানরা।

বুধবার মুম্বাইর ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে প্রথমে ব্যাট করা চেন্নাই নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৩ উইকেট হারিয়ে ২২০ রানের বিশাল সংগ্রহ পায়। জবাবে ব্যাট করতে নেমে কলকাতা ১৯.১ ওভারে অলআউট হওয়ার আগে ২০২ রান করতে পারে।

এদিন সাকিব আল হাসানকে ছাড়া খেলতে নামে কলকাতা। তার বদলে সুযোগ পান সুনীল নারাইন। এছাড়াও বাদ পড়েছেন অভিজ্ঞ স্পিনার হরভজন সিং। তার পরিবর্তে জায়গা পেয়েছেন কমলেশ নাগরকোটি।

২২১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে চেন্নাই পেসার দীপক চাহারের বিধ্বংসী বোলিংয়ে দলীয় ৩১ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে বসে কলকাতা। অবশেষে হাল ধরেন কার্তিক ও রাসেল। তারা দুজনে মিলে ৩৯ বলে ৮১ রানের জুটি গড়েন। ঝড়ো ব্যাট করা রাসেল ২২ বলে ৩টি চার ও ৬টি ছক্কায় ৫৪ করে স্যাম কারেনের বলে বোল্ড হন। এরপর কার্তিক ২৪ ব্যক্তিগত ৪০ রানে আউট হলে ফের বিপর্যয়ে পড়ে দলটি।

কিন্তু অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডার কামিন্স এসে একাই দলকে টেনে নিতে থাকেন। একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলের ব্যবধান বেশ কমিয়ে আনেন। কিন্তু অপর প্রান্তে উইকেট না থাকায় আর পেরে ওঠেননি। কামিন্স অপরাজিত থাকলেও শেষ দুই ওভারে দুটি রান আউটে ইতি টানে কলকাতার ইনিংস। কামিন্স ৩৪ বলে ৪টি চার ও ৬টি ছক্কায় ৬৬ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেন।

চেন্নাই বোলার চাহার সর্বোচ্চ ৪টি উইকেট পান। এছাড়া ৩টি উইকেট তুলে নেন লুঙ্গি এনগিদি। স্যাম কারেন একটি উইকেট নেন।

টস হেরে এর আগে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা দারুণ করে চেন্নাই। দুই ওপেনার ফাফ ডু প্লেসি ও ঋতুরাজ গায়কড় মিলে ১২.২ ওভারে ১১৫ রান তোলেন। দারুণ ইনিংস খেলে ৬৪ রানে থামেন গায়কড়। বরুণ চক্রবর্তীর বলে আউট হওয়ার আগে তিনি ৪২ বলে ৬টি চার ও ৪টি ছক্কা হাঁকান।

অন্যপ্রান্তে অসাধারণ ব্যাটিং করে যান প্লেসি। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে তিনি মঈন আলীর সঙ্গে ৫০ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। সুনীল নারাইনের বলে আউট হওয়া মঈন ঝড়ো ১২ বলে ২৫ রান করেন। তবে উইকেটে অবিচল থাকা দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান প্লেসি দারুণ ব্যাটিংয়ে দলীয় সংগ্রহ বাড়াতে থাকেন। শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকা এই ব্যাটসম্যা অবশ্য সেঞ্চুরি বঞ্চিত হন। ৬০ বলে ৯টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৯৫ রান করেন এই ডানহাতি।

কলকাতা বোরদের মধ্যে বরুণ, নারাইন ও আন্দ্রে রাসেল একটি করে উইকেট নেন।

ম্যাচ সেরা হন ফাফ ডু প্লেসি।

এ জয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে এলো চেন্নাই। ৪ ম্যাচে ৩ জয় ও এক হারে ৬ পয়েন্ট অর্জন করেছে ধোনির দল। তবে হেরে আট দলের মধ্যে ষষ্ঠস্থানে রয়েছে কলকাতা। ৪ ম্যাচে মাত্র একটি জয় পেয়েছে দলটি।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »