মিঠাপুকুরের আইরিন হত‍্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেফতার

মিঠাপুকুর (রংপুর) থেকে শামীম রানা »

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মিঠাপুকুরের পায়রাবন্দে চাঞ্চল‍্যকর আইরিন হত‍্যা মামলার প্রধান আসামি স্বামী জীবন(২৫)কে গ্রেফতার কর‍েছে মিঠাপুকুর থানা পুলিশ।

গত রবিবার রাত আড়াইটার সময়আসামী জীবন এর কক্ষ থেকে তার স্ত্রী আইরিনের লাশ উদ্ধার করা হয়। ঘটনার পর থেকেই জীবন পলাতক ছিল। উক্ত ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। ঘটনাটি গুরুত্ব সহকারে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার ব্যপকভাবে প্রচারিত হয়। উক্ত ঘটনায় মিঠাপুকুর থানায় মামলা হয়। মামলা নং-২১, তাং-১২.০৪.২০২১, ধারা-১১(ক)/৩০ নারী ও শিশু নির্যাতন আইন-২০০০

ঘটনার দিনই মিঠাপুকুর থানা পুলিশ তার শাশুড়ী নুরজাহান (৪২) কে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করে কিন্তু প্রধান আসামী জীবন গা ঢাকা দেয়। তবে পালিয়ে গিয়েও শেষ রক্ষা হয় নাই জীবনের। অবশেষে ঘটনার একদিন পরে গতকাল বিকালে পঞ্চগড় জেলার বোদা ধানার মিঠাপুকুর থানা পুলিশ এর একটি চৌকশ দল তাকে গ্রেফতার করে।

মৃত আইরিনের পরিবার ও এলাকাবাসীর ভাষ্যমতে ভিকটিম মোছাঃ মোসলেমা বেগম আইরিন (২২) এর সাথে আসামী মোঃ তুষার আলম জীবনের পারিবারিকভাবে আলোচনার মাধ্যমে অনুমান ৩(তিন) বছর আগে বিবাহ হয়। বিবাহের পর হতে মায়ের প্ররোচনায় আসামী জীবন যৌতুকের জন্য আইরিনকে শারিরীক ও মানসিক চাপ প্রয়োগ করে আসছিল। তাদের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে আইরিন তার বাবার বাড়ী হতে যৌতুকের টাকা নিয়ে এসে জীবনকে দেয়।

কিছু দিন পরে পুনরায় আবার যৌতুকের জন্য শারিরীক নির্যাতন করলে আইরিন সহ্য করতে না পেরে ঘটনার অনুমান ১০(দশ) দিন আগে বাবার বাড়ীতে যায়। পরিবারের লোকজনের নিকট যৌতুকের জন্য টাকার কথা বলে। পরে তার বাবা তার মেয়েকে শারিরীক নির্যাতন হতে বাচাঁর জন্য ২০ হাজার টাকা প্রদান করে।

উক্ত টাকা নিয়ে আসার পরও আসামীরা আবার তাকে যৌতুকের জন্য নির্যাতন করতে থাকে। উক্ত যৌতুকের টাকার জেরে ২ নং আসামীর সহযোগীতায় ১ নং আসামী মোঃ জীবন ডিশ লাইনের তার পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে আইরিন কে হত্যা করে।

আজ উক্ত আসামী কে পুলিশ রিমান্ডের আবেদনসহ জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »