ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হরতালে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ, ২ জনের মৃত্যু

ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে জালাল উদ্দিন রুমি »

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

রবিবার হেফাজতে ইসলাম ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালনকালে বিক্ষুব্ধ হরতালকারীরা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্নস্থানে সরকারী-বেসরকারী গুরুত্বপূর্ণ অফিস, আওয়ামীলীগ দলীয় কার্যালয় ও বাড়িঘরে ব্যাপক হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটায়। এর ফলে জেলায় অরাজকতার অবস্থার সৃষ্টি করে। এসময় আলামিন (২০), আশিক (৩৫) নামে ২জন নিহত হয়েছে। এ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০-এ। শহরজুড়ে চলছে থমথম অবস্থা।

সশস্ত্র কর্মীরা সকাল ১১টার পর থেকে শহরের হালদারপাড়াস্থ জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়, জেলা পরিষদ কার্যালয়, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহীর গাড়িসহ ৩টি মোটর সাইকেল, সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ পৌর মিলনায়তন, পৌরসভা ভবন, শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বর, জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদকের কার্যালয়, জেলা শিল্পকলা একাডেমী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা গণ গ্রন্থাগার, সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গন, সদর উপজেলা ভূমি অফিস, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আল মামুন সরকারের বাসভবন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেল, জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক শাহাদত হোসেন শোভনের বাড়িতে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়া হয়। শহরের শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বরে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আয়োজিত উন্নয়ন মেলার ৩২টি স্টলে অগ্নিসংযোগ করা হয়।

এছাড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব, ব্যাংক অব এশিয়া, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমপ্লেক্স, শহরের আনন্দময়ী কালীবাড়ির মন্দিরের মুর্তি, বিজয়নগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জহিরুল ইসলাম ভূইয়ার নিজস্ব অফিস, বিজয়নগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নাসিমা মুকাই আলীর শহরের হালদারপাড়াস্থ বাসভবন, ব্যাপক ভাংচুর চালানো হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবে হামলার সময় প্রেসক্লাবের সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন জামি গুরুতর আহত হন। এদিকে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত শহরের পৈরতলা, জেলা পুলিশ লাইন, কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক বিশ^রোড এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে বিক্ষোভকারীদের ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে থানা মসজিদ থেকে পুলিশের পক্ষ থেকে মাইকিং করে থানায় হামলা না চালানোর জন্য মাদ্রাসার ছাত্রদের অনুরোধ করা হয়।

নিরাপত্তার কারনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট, নোয়াখালীর পথে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। সকাল নয়টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চট্টগ্রামগামী সোনার বাংলা এক্সপ্রেসে ভাঙচুর চালানো হয়। খুলে ফেলা হয় রেললাইনের নাট-বল্টু।
সকালে হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর মাওলানা সাজিদুর রহমানের নেতৃত্বে জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া মাদ্রাসা প্রাঙ্গণ থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে প্রেসক্লাবের সামনে এক সংক্ষিপ্ত সভা করে। বক্তব্য রাখেন হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা ও জেলার সাধারণ সম্পাদক ও জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মুফতি মোবারক উল্লাহ, জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া মাদ্রাসার শিক্ষা সচিব মাওলানা শামসুল হক, কওমী প্রজন্ম ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মুখপাত্র হাফেজ মুফতি এরশাদুল্লাহ প্রমূখ।

উল্লেখ্য, শনিবার রাতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রণক্ষেত্রে পরিনত হয়। শনিবার জেলার বিভিন্ন স্থানে সংর্ঘষে অন্তত ৮জন নিহত হয় বলে হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর ও দারুল আরকান মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা সাজিদুর রহমান জানান। এছাড়াও আরো অনেক ছাত্র গুরুতর আহত হয়। নিহতরা হলেন জুরু আলম (৩৫), সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার বাদল মিয়া (২৪) ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া বারিউড়া মৈন্দ গ্রামের সুজন মিয়া (২২) বুধলের প্লাম্বার শ্রমিক কাউসার (২৫), জোবায়ের মিয়া (১৪), আখাউড়া মনিয়ন্দের মাওলানা হোসাইন(২২), সদর উপজেলার কলাইমুড়ি এলাকার সুলতান ও বুধলের কাওসার মিয়া।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »