খালি হাতেই ফিরতে হলো টাইগারদের

অনলাইন ডেস্ক »

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

প্রথম দুই সেশনের পুরোটা আর শেষ সেশনের অর্ধেক সময় ঘাম ঝরিয়েও একটি উইকেট নিতে পারলেন না বাংলাদেশি বোলাররা।

পাল্লেকেলেতে চতুর্থ দিনের পুরোটা বাংলাদেশের কাটলো উইকেটের জন্য হাপিত্যেশ করতে করতে। ৩ উইকেটে ২২৯ রান নিয়ে দিনের খেলা শুরু করা শ্রীলঙ্কা আলোক স্বল্পতায় খেলা বন্ধ হওয়ার আগে চতুর্থ দিনে করেছে ৩ উইকেটে ৫১২ রান।

অর্থাৎ এ দিন ২৮৩ রান তুলেছেন দুই ব্যাটসম্যান দিমুথ করুনারত্নে আর ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। কিন্তু এত রান খরচ করেও বাংলাদেশ একটি উইকেট তুলে নিতে পারেনি। টাইগারদের প্রথম ইনিংস (৫৪১/৭ ডিক্লে.) থেকে লঙ্কানরা পিছিয়ে ২৯ রানে।

ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে। ওপেন করতে নামা এই ব্যাটসম্যান ৪১৯ বল মোকাবেলায় ২৫ বাউন্ডারিতে অপরাজিত আছেন ৩২৪ রানে।

২৭৮ বল খেলে ২০ চারে ১৫৪ রানে অপরাজিত আরেক ব্যাটসম্যান ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। চতুর্থ উইকেট জুটিতে ৮৬.৩ ওভার খেলে তারা অবিচ্ছিন্ন আছেন ৩২২ রানে।

প্রথম সেশনে ৩১ ওভারে ১০২ আর দ্বিতীয় সেশনে ৩০ ওভারে ১১১ রান তুলেন এই ধনঞ্জয়া-করুনারত্নে। তৃতীয় সেশনে ১৫ ওভার ব্যাট করে তুলেছেন ৭০ রান।

তৃতীয় সেশনে মাত্র ৫ ওভার খেলা হওয়ার পরই আকাশের কালো মেঘে অন্ধকার হয়ে গিয়েছিল চারদিক। ফলে আম্পায়াররা বাধ্য হয়ে খেলা বন্ধ করেন। অনেকটা সময় এই অবস্থায় ছিল। তবে পরে আকাশ কিছুটা পরিষ্কার হলে ফের খেলা চালানোর সিদ্ধান্ত নেন আম্পায়াররা।

এরপর ১০ ওভার খেলা হয়েছে, ফের আলোক স্বল্পতায় বন্ধ করতে হয়েছে। খেলা শুরু হওয়ার দুই ওভারেই মধ্যেই ডাবল সেঞ্চুরি তুলে নেন করুনারত্নে, তাসকিন আহমেদের এক ওভারে জোড়া বাউন্ডারি হাঁকিয়ে।

এই টেস্টে ড্রয়ের সম্ভাবনাই প্রবল। ঝুঁকি থাকলে কিছুটা আছে বরং বাংলাদেশেরই। লঙ্কানদের হাতে ৭ উইকেট। শেষ দিনের প্রথম এক বা দেড় সেশন ব্যাট করে যদি দ্রুতগতিতে দুইশর মতো রান তুলে ফেলে করুনারত্নের দল, তবে পৌঁছে দুইশর মতো এগিয়ে থাকবে তারা।

সে ক্ষেত্রে শেষ এক কিংবা দেড় সেশন বাংলাদেশকে ব্যাটিং দিতে চাইবে শ্রীলঙ্কা। শেষ দিনের উইকেট থেকে বাড়তি কিছু সাহায্য নিয়ে মিরাকলও ঘটাতে চাইবে। তাই বাংলাদেশের এখনই নিশ্চিন্ত ড্র ভেবে স্বস্তিতে থাকার উপায় নেই।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »