Koyra Hospital

৩ কিলোমিটারের মধ্যে ৪টি বিদ্যালয়, অনুমোদনের অপেক্ষায় আরো একটি

পিরোজপুর প্রতিনিধি »

  • Spread the love
    •  
    •  
    •  
    •  
    •  
    •  
    •  
    •  
    •  
    •  
    •  

    বেসরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের ক্ষেত্রে এক বিদ্যালয় থেকে অন্য বিদ্যালয়ের দুরত্ব ৫ কিলোমিটার হওয়ার সরকারি বিধান রয়েছে।

    কিন্তু সরকারি এ নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে পিরোজপুরের নাজিরপুরে ৩ থেকে ৪ কিলোমিটারের মধ্যে ৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিষ্ঠিত ওই বিদ্যালয় গুলোর মধ্যে একটি থেকে মাত্র এক কিলোমিটার দুরত্বে নতুন আরো একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় অনুমোদনের প্রক্রিয়া চলছে।

    নতুন ওই বিদ্যালয়টির অনুমোদনের জন্য উপজেলা ও জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস থেকে ইতোমধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে প্রতিবেদন প্রেরণ করা হয়েছে।

    >>>>>

    উপজেলার ৩ নং দেউলবাড়ী দোবড়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডে ১৯৮৫ সালে প্রতিষ্ঠিত মনোহরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জমিদাতা ও পরিচালনা কমিটির সাবেক সভাপতি মো. কামরুজ্জামানের লিখিত অভিযোগ সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। সম্প্রতি তিনি এ সংক্রান্তে বরিশাল শিক্ষা বোর্ডসহ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

    লিখিত অভিযোগ ও সরেজমিন অনুসন্ধানে জানা যায়, ১৯৮৫ সালে মনোহরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর বিভিন্ন সময়ে ওই বিদ্যালয়ের ২ থেকে ৩ কিলোমিটারের মধ্যে আরো চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ওই বিদ্যালয় থেকে অনুমান ২ কিলোমিটার উত্তরে বিলডুমুরিয়া পদ্মডুবি মাধ্যমিক বিদ্যালয়।

    আড়াই কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে ত্রিগ্রাম সম্মিলনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়। আড়াই কিলোমিটার দক্ষিণে আমভিটা নিম্ম মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ১ কিলোমিটার দক্ষিণে মোহাম্মাদিয়া দাখিল মাদরাসা। এ চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার পর এমপিওভুক্ত হয়ে প্রতিষ্ঠানগুলো সরকারি সুযোগ-সুবিধা ভোগ করে আসছে।

    বর্তমানে মনোহরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে মাত্র এক কিলোমিটার দুরত্বে ডিপিপি’র আওতায় পদ্মডুবি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় (প্রস্তাবিত) নামে আরো একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে।

    সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, দেউলবাড়ী দোবড়া ইউনিয়নটির আয়তন ১৪ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা ২১ হাজার ২ শ’ ৫০ জন। আয়তন ও জনসংখার তুলনায় এ ইউনিয়নটিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেশী। এখানে বর্তমানে ৬টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৪টি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৩টি দাখিল মাদরাসা রয়েছে।

    এ প্রতিষ্ঠান গুলোর মধ্যে দু’ চারটি ছাড়া বাকী সবগুলোতেই রয়েছে শিক্ষার্থী সংকট। এখানকার সোনাপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে গত এসএসসি পরীক্ষায় মাত্র দু’জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেছে। নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় চারটি মাধ্যমিকের অনুমোদন পেলেও শিক্ষার্থী সংকটের কারণে নিম্ন মাধ্যমিক হিসেবে পরিচালিত হয়ে আসছে।

    অভিযোগকারী মো. কামরুজ্জামান বলেন, নতুন বেসরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে জনসংখ্যা, পার্শ্ববর্তী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে দুরত্ব এসব বিষয়ে কর্তৃপক্ষ সরেজমিন তদন্ত করে অনুমোদনের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে কাগজপত্র পাঠানো কথা কিন্তু এত কম দুরত্বে কিভাবে প্রতিষ্ঠান গুলো প্রতিষ্ঠিত হলো এবং নতুন করে আরো একটি অনুমোদনের জন্য প্রেরণ করা হলো তা আমার বোধগম্য নয়। এ ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবী করছি। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কাঙ্খিত শিক্ষার্থী না থাকায় অহেতুক সরকারি অর্থ অপচয় হচ্ছে।

    অনুমোদনের অপেক্ষায় থাকা পদ্মডুবি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মাইনুল ইসলাম বলেন, ডিপিপি আওতায় আমরা একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের আবেদন করেছি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সরেজমিন পরিদর্শন করে অনুমোদনের জন্য প্রতিবেদন দাখিল করেছে। সরকারি অনুমোদন পেলে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হবে। অনুমোদন না পেলে হবে না।

    এ বিষয়ে কথা হলে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. মাহিদুল ইসলাম বলেন, বিধি অনুযায়ী একটি থেকে অন্যটির দুরত্ব তিন কিলোমিটার হলেই চলবে। তবে নতুন যে স্কুলটি হতে যাচ্ছে সেটা এখনো আমি সরেজমিন পরিদর্শন করিনি। পরির্দশন না করে কিভাবে অনুমোদনের জন্য প্রতিবেদন পাঠালেন এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেনি।

    জেলা শিক্ষা অফিসার সুনীল সেন গুপ্ত বলেন, অবশ্যই একটি প্রতিষ্ঠান থেকে অন্যটির দুরত্ব ৪ কিলোমিটার হতে হবে। কোন কোন ক্ষেত্রে বিশেষ বিবেচনায় ৩ থেকে সাড়ে তিন কিলোমিটারের মধ্যেও তা হতে পারে।

    কিন্তু তার কম হওয়ার কোন সুযোগ নেই। আর এক কিলোমিটারের মধ্যে অন্য একটি প্রতিষ্ঠান থাকলে কোন ভাবেই সেখানে আরেকটি প্রতিষ্ঠান হতে পারে না। তবে এই বিদ্যালয়টির প্রতিবেদন কিভাবে আমার অফিস থেকে গিয়েছে, তা এই মুহুর্তে আমার মনে পড়ছে না। কাগজপত্র না দেখে বিস্তারিত বলা যাচ্ছে না।

  • শেয়ার করুন »

    মন্তব্য করুন »