Koyra Hospital

এবার ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ভোটারদের মামলা

অনলাইন ডেস্ক »

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন বেশ কয়েকজন ভোটার। মিশিগানের একদল ভোটার বলছেন, নির্বাচনের ফলাফলের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের মামলা এবং ভোট পুনর্গণনায় বাধা প্রদানের কারণে তারা বঞ্চিত হচ্ছেন।

গত শুক্রবার মিশিগানের ডেট্রয়েট শহরের একটি সংগঠন ও তিনজন কৃষ্ণাঙ্গ ভোটার ওয়াশিংটন ডিসির ফেডারেল আদালতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন বলে নিশ্চিত করেছে নিউইয়র্ক পোস্ট।

মিশিগান ওয়েলফেয়ার রাইটস অর্গ্যানাইজেশন এবং দ্য এনএএসিপি লিগ্যাল ডিফেন্স ফান্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মিশিগানে নির্বাচনের ফলাফল অনুমোদনে বাধা দেওয়ায় এবং আইনপ্রণেতাদের চাপ দেওয়া থেকে ট্রাম্পকে বিরত থাকতে আদালতকে আদেশ দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে। মিশিগানে বাইডেনের জয়ী হওয়ার খবর সামনে আসার পর থেকেই ভোট পুনর্গণনার জন্য চাপ দিয়ে যাচ্ছেন ট্রাম্প। এমনকি তিনি বার বার বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে ভোট জালিয়াতির অভিযোগও এনেছেন।

গত ৩ নভেম্বরের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ব্যাপক ভোট জালিয়াতির অভিযোগ তুলে সম্প্রতি হেরে যাওয়া অঙ্গরাজ্যগুলোতে মামলার ঝড় তুলেছেন ট্রাম্প সমর্থকরা। তবে উপযুক্ত প্রমাণ দেখাতে না পারায় বেশিরভাগ জায়গায় এসব মামলা খারিজ হয়ে গেছে। সর্বশেষ গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচনী ব্যাটলগ্রাউন্ড পেনসিলভানিয়াতেও হেরে গেছেন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সমর্থকরা।

শনিবার ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রচারণা দলের দায়ের করা মামলাটি খারিজ করে দিয়েছেন পেনসিলভানিয়ার এক জেলা জজ আদালত।

যদিও রিপাবলিকানদের মামলাটিতে জেতার সম্ভাবনা বরাবরই কম ছিল। তবে ট্রাম্পের সমর্থক ও তার লিগ্যাল টিম, বিশেষ করে প্রেসিডেন্টের ব্যক্তিগত অ্যাটর্নি রুডি গিলিয়ানি পেনসিলভানিয়ার ফেডারেল বিচারকদের ওপর ভরসা করে জেতার আশা ধরে রেখেছিলেন।

মিশিগানের নিজের চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে গেছে ট্রাম্পের। সেখানে রিপাবলিকান প্রতিনিধিরা পরোক্ষভাবে ডেমোক্র্যাট জো বাইডেনকেই জয়ী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন। পুনরায় ভোটগণনার পথে হাঁটতে রাজি নন বলেও জানিয়েছেন তারা।

নির্বাচনের ফল আসার পর থেকেই ট্রাম্প দাবি করে আসছেন, কারচুপি করে জয় ছিনিয়ে নিয়েছেন বাইডেন। তারপর থেকেই ভোট পুনর্গণনার দাবি তুলে মামলা করা হয়। কিন্তু এর অধিকাংশই ব্যর্থ হয়েছে।

সম্প্রতি আরিজোনাতেও ট্রাম্প সমর্থকদের মামলা খারিজ হয়ে গেছে। সেখানকার স্থানীয় দুই রিপাবলিকান দাবি করেছিলেন যে, তাদের ভোটগুলো ভুলভাবে হস্তান্তর করা হয়েছে।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »